Home » সবচেয়ে বেশী উপকারী ব্যায়াম – কমাতে পারে শরীরের অর্ধেক রোগ
উপকারী ব্যায়াম

সবচেয়ে বেশী উপকারী ব্যায়াম – কমাতে পারে শরীরের অর্ধেক রোগ

by Dr. ABM Khan
0 comment 205 views

উপকারী ব্যায়াম

হেঁটে ব্যায়াম করার কোন বিকল্প নেই। এটি ব্যয় সাপেক্ষ নয়। আপনার যা প্রয়োজন তা হচ্ছে এক জোড়া ভালো জুতো। হেটে ব্যায়াম করার ফলে দেহের সমস্ত তন্ত্রের উপকার সাধিত হয় বিশেষ করে হৃদযন্ত্র, রক্ত সঞ্চালন তন্ত্র এবং মাংসপেশীর উৎকর্ষ লাভ হয়। যেহেতু হাটা একটি মাঝারী ধরণের ব্যায়াম সেহেতু এর ফলে বিপজ্জনক চাপে হরমনের অতি উৎপাদন হয় না। হেটে ব্যায়াম করলে শুধু যে পা শক্তিশালী হয় এমন নয় বরং এর ফলে ঊরু, পিঠ, ঘাড় এবং বাহু যুগল পর্যন্ত উপকৃত হয় ।

হেঁটে ব্যায়াম করায় সময়টা কি ভাবে ব্যবহার করবেন অনেকে বলে, “হেঁটে ব্যায়াম করা প্রচন্ড এক গুঁয়েমী লাগে।” যদি তাই হয় তবে একটি সখ মনোনয়ন করে ফেলুন এবং একই সাথে ব্যায়াম এবং সখ দুটোরই উদ্দেশ্যে কাজ করুন, হাটার সময় ছোট একটি টেপরেকর্ডারে গান শুনতে পারেন অথবা কোন শিক্ষামূলক বক্তৃতা শুনতে পারেন । অথবা যদি কোন নির্দিষ্ট বিষয় শিখতে চান তবে কার্ডে লিখে তা ব্যায়াম করার সময় পড়তে পারেন । এভাবে করলে আপনার মনও ব্যায়ামের সুফলের অংশিদার হতে পারবে।

সাঁতার কাটাও ভালো

যাদের পুকুর আছে কিম্বা যারা সমুদ্র সৈকতের কাছে বসবাস করেন তাদের জন্য সাঁতার কাটাও একটি সর্বোত্তম ব্যায়াম । কারণ পানিতে ভাষমানতার ফলে, যাদের ওজন এবং অস্তিসন্ধির সমস্যা রয়েছে তারা এ থেকে উপকৃত হতে পারেন।

সাইকেল চালনা

সাইকেল চালনা আপনার পা, হৃদযন্ত্র, এবং ফুসফুসের জন্য উত্তম এবং এটি সঞ্চালন তন্ত্রেরও উপকার সাধন করে। দৌড়ানোর মত এটি অস্থি সন্ধির উপর বেশী চাপ প্রয়োগ করে না তথাপি সাইকেল চালানোর ফলে অনেক সময় ঘাড় কুঁজো হয়ে যায় ।

সাইকেল যে দিকে বেশী নজর দিতে হয় সেটি হচ্ছে সাইকেলের আসনটি। সাইকেলের আসনটি সুন্দর এবং উপযুক্ত ভাবে পাতানো থাকতে হবে, তা না হলে দৈহিক গঠনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া এসে যেতে পারে। দুর্ভাগ্যবশতঃ অনেকেই বড় বড় শহরে বসবাস করে সেখানে সাইকেল চালনা বিপজ্জনক। তবুও সপ্তাহান্তে নির্জন গ্রাম্যপথে সাইকেল চালাতে যাওয়া, একই সাথে ব্যায়াম এবং আনন্দ উভয়েরই উৎস হতে পারে।

আরও পড়ুন:

ব্যায়ামের উপকারিতা ও অন্যান্য

উচ্চ রক্তচাপ কেন হয় ও কমানোর উপায় কি?

 

ব্যায়াম করার যন্ত্র

গবেষণার আলোকে বলা হয়ে থাকে যে আপনার ব্যায়াম অবশ্যই আপনার উপভোগ করতে হবে তা না হলে ব্যায়াম থেকে আপনি কোন উপকার পাবেন না। ব্যায়াম করা যদি আপনি অপছন্দ না করেন তবে সেটি যে আপনি এক দিন বন্ধ করে দেবেন তা প্রায় হলফ করে বলা যায় । বাজারে হরেক রকম ব্যায়াম করার যন্ত্র পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে যে বিক্রেতার ব্যাখ্যা অনুপাতে সেগুলি কি ততটা কর্মক্ষম? অনুসন্ধান করে দেখা গেছে যে এ সব যন্ত্র দিয়ে যারা ব্যায়াম করে তারা কেবল শ্রম এবং শ্রমের অপচয়ই করে এবং কাঙ্খিত অর্জনে কখনোই সক্ষম হয় না।

মৃদু দৌড় (Jogging) কি তাহলে সমাধান?

তাহলে মৃদু দৌড় সম্পর্কে কি বলা যেতে পারে? প্রাচ্য ও গ্রীষ্মমন্ডলের অনেকে ইদানিং মৃদু দৌড় একটি ভাল ব্যায়াম হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। ফুটপাথ এবং উদ্যানে প্রায়শঃ লোকদের দৌড়াতে দেখা যায়। কিন্তু দৌড় অনেক প্রকার সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। বিশেষ করে যারা বয়োবৃদ্ধ কিংবা মেদস্বী অথবা যাদের দৈহিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয় তাদের পক্ষে মৃদু দৌড় বিপজ্জনক হতে পারে কারণ দৌড়ানোর ফলে অস্থি সন্ধিতে চাপ পড়ে তা বিপদের কারণ হতে পারে। অনেক দৌড় বাজ আজ কাল উপলব্ধী করছেন যে দৌড়ালে অস্থি সন্ধি ক্ষয় পায় ।

দৌড়ের ফলে আহত হতে পারেন

দা রানোর্স ওয়ার্ল্ড সাময়িকি দৌড়ালে কত প্রকারে আহত হবার সম্ভাবনা থাকে তা জানার উদ্দেশ্য একহাজার দৌড়বাজের মতামত যাচাই করেছে। তাদের মধ্যেই ষাট শতাংশ লোক বলেছে তারা বেশ গুরুতর ভাবে আহত হয়েছে। সাধারণ ভাবে দৌড়বাজগণ যে সব স্থানে আঘাত পান সে গুলো হচ্ছে হাটু, উরু, (shin) পায়ের নলি এবং কন্ডুরা (tendon) ইত্যাদি । দৌড়ানোর ফলে কোন কোন মাংস পেশী অপর মাংস পেশী অপেক্ষা অধিকার শক্তিশালী হয়, ফলে সামগ্রীক পেশীর মধ্যে অসামাঞ্জস্যতা পরিলক্ষিত হয় এবং অস্থিসন্ধি ও অস্থির উপরে ক্ষতিকর প্রভাব বিস্তার করে।

ম্যারাথন দৌড় বিশেষ ভাবে বিপজ্জনক হতে পারে। প্রতিযোগিতা শ্রম উৎসাহিত করে তোলে তবে তা দৈহিক ক্ষমতার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে হবে। প্রচন্ড এবং প্রবল ভাবে পেশী সঞ্চালন বিভিন্ন (membrane) ছিদ্র করে ফেলতে পারে এবং তা থেকে আমিষ এবং পুষ্টী নির্গত হতে পারে। এ রকম হলে প্রস্রাবের গাঢ় রং হতে পারে এবং পরবর্তিতে কিডনি বিকলাঙ্গতা দেখা দিতে পারে।

উষ্ণ আবহাওয়ায় দৌড়

দৌড়বিদগণ এবং ম্যারাথন দৌড়ে অংশ গ্রহণকারীগণ উষ্ণ এবং আর্দ্র আবহাওয়া যা সুদূর পাচ্যের বিভিন্ন এলাকায় রয়েছে আরো বাড়তি ঝুঁকির। মাংসপেশীতে বাড়তি রক্ত প্রবাহের ফলে দেহের আভ্যন্তরীণ অঙ্গ প্রত্যঙ্গ রক্ত প্রবাহ হ্রাস পায়। কিডনিতে রক্ত সরবরাহের ঘাটতির কারণে রক্ত চাপ বিপজ্জনক ভাবে বৃদ্ধি পেতে পারে। যকৃৎ যখন উপযুক্ত পরিমাণ রক্ত সরবরাহ থেকে বঞ্চিত হয় যখন যকৃৎ কোষে পুষ্টি সঞ্চিত হয়। রক্ত অতি সহজে জমাট বেধে যাবার সম্ভাবনা থাকে এবং এর ফলে হার্ট এ্যাটাক এমন কি মৃত্যুও ঘটতে পারে।

গ্রীষ্ম মন্ডলের দৌড়বিদদের একটি সাধারণ ব্যাধি হচ্ছে অতি তাপাধিক (hyperthermia)। এ রোগের কারণে দেহ এত বেশী তাপযুক্ত হয় যে মগজ পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে ।

মাঝারী ধরণের ব্যায়ামই সর্বোৎকৃষ্ট

যে কোন প্রকার ব্যায়ামের ক্ষেত্রে মাঝারী ধরণ অনুশীলন করলে ভালো। এটি অত্যন্ত দুঃখের হবে যদি আপনি অতি ব্যায়ামের কারণে কিডনি, যকৃৎ ইত্যাদি অঙ্গের ক্ষতিসাধন করেন। তা হলে অভিষ্ট লক্ষ্য যদি হেঁটে, সাইকেল চালনা এবং সাঁতার স্থায়ী অঙ্গ হানি করে তার ঝুঁকি নেয়ার কি কোন সংগত কারণ থাকে ?

You may also like

Leave a Comment