Home » পেটের গ্যাস বের করার ব্যায়াম | পেটের গ্যাস বের করার উপায়
পেটের গ্যাস বের করার উপায়

পেটের গ্যাস বের করার ব্যায়াম | পেটের গ্যাস বের করার উপায়

by Dr. ABM Khan
0 comment 314 views

আপনার কি গ্যাসের সমস্যা আছে? আমরা জানি যে এটি খুব বিরক্তিকর হতে পারে এবং কখনও কখনও এমন তীব্র ব্যথার কারণ হতে পারে যে এটি এমনকি আলসারও সৃষ্টি করতে পারে। পেটে গ্যাস সৃষ্টি করে এমন কারণগুলি জানার পাশাপাশি, পেটের গ্যাস বের করার ৭টি ব্যায়ামের কথা আমরা এই আর্টিকেলে আপনার সাথে শেয়ার করব। দ্রুত পেটের গ্যাস কমানোর উপায় এই লেখায় পাবেন।

যদিও খাবারই গ্যাস উৎপাদনের সাথে জড়িত, তবে অন্যান্য কারণগুলি রয়েছে যা আপনার বিবেচনা করা উচিত, যেমন  অশৃঙ্খল জীবনধারা, উদ্বেগ বা কিছু হজম সংক্রান্ত সমস্যা। আপনি যদি পরবর্তী কারণটি সন্দেহ করেন, তাহলে একজন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন, কারণ গ্যাস এমন ব্যাধির জন্ম দিতে পারে যেগুলি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য যথাযথভাবে চিকিৎসা করা প্রয়োজন। অনেক কারণেই পেটে গ্যাস হতে পারে। যদি ঘন ঘন এই সমস্যা হয় তবে চিন্তা করবেন না। কারণ, আমরা এই আর্টিকেলে জানাচ্ছি কিভাবে আপনি আপনার পেটের গ্যাস বের করতে পারবেন খুব সহজ কয়েকটি ব্যায়াম করে। পেটের গ্যাস বের করার এই ৭টি উপায় আপনার সারাজীবন কাজে লাগবে।

আরও পড়ুন:

১০টি হাটুর ব্যাথা সারানোর ব্যায়াম || হাটুর ব্যাথা সারানোর উপায়

হার্টের ব্লক দূর করার ১০টি ব্যায়াম || হার্টের ব্লক দূর করার প্রাকৃতিক উপায়

 

কিভাবে পেটে গ্যাস উৎপাদিত হয়?

বলা হয়ে থাকে, প্রতিকারের চেযে প্রতিরোধই উত্তম। গ্যাস নির্মূল করার জন্য ৭টি ব্যায়াম শেখার আগে, এটি কীভাবে উৎপাদিত হয় তা বোঝা আগে জরুরি। আপনি আপনার খারাপ অভ্যাসগুলো পরিত্যাগের মাধ্যমে এই গ্যাস উৎপাদন নির্মূল করতে পারবেন। তবে পরিপাকতন্ত্রে গ্যাস জমা হওয়া থেকে কেউ রেহাই পায় না। কখনও কখনও এটি অনিবার্য। উদাহরণস্বরূপ, ডালের একটি ভাল প্লেটের মুখোমুখি হলে, আমরা জানি যে আমরা ফাইবার, ভিটামিন এবং খনিজ ছাড়াও গ্যাস পেতে পারি। যাইহোক, কিছু কৌশল আছে যা সাহায্য করতে পারে। তবে প্রথমে দেখা যাক কী কী অভ্যাস বা অবস্থার কারণে আমাদের অন্ত্রে গ্যাস জমে।

উদাহরণ স্বরূপ:

  • খুব দ্রুত খাওয়া এবং ভালভাবে না চিবিয়ে খাওয়া।
  • খাওয়ার সময় কথা বলা।
  • যেসব খাবার হজম করা কঠিন, যেমন লেগুম, দুগ্ধজাত খাবার, প্রচুর আঁশযুক্ত খাবার ইত্যাদি খাওয়া।
  • কোমল পানীয় বা কার্বনেটেড পানীয় পান করা।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য, ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম এবং পাচনতন্ত্রের অন্যান্য রোগের জন্য বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করা উচিত।
  • খারাপ অভ্যাস যেমন ধূমপান এবং চুইংগাম চিবানো।

কিছু ওষুধ অন্ত্রের উদ্ভিদকেও পরিবর্তন করতে পারে এবং গ্যাস সৃষ্টি করতে পারে।

উপরের তালিকা থেকে, খারাপ অভ্যাসগুলি দূর করার পরামর্শ দেওয়া হয় – যেমন ধূমপান – এবং কোমল পানীয় যা পুষ্টি সরবরাহ করে না; ধীরে ধীরে খাওয়া, খাওয়ার সময় কথা না বলা এবং সম্ভাব্য খাদ্য অসহিষ্ণুতার দিকে মনোযোগ দেওয়ার মতো দিকগুলি উন্নত করুন। আপনি যে খাবারগুলি খাচ্ছেন তা বুদ্ধিমানের সাথে বেছে নেওয়াও বাঞ্ছনীয় –

উদাহরণস্বরূপ – রাতের খাবারের জন্য হালকা, সহজে হজমযোগ্য খাবার খাওয়া এবং মধ্যাহ্নভোজে গ্যাস সৃষ্টি করতে পারে এমন খাবার ত্যাগ করা বাঞ্ছনীয়, কারণ বিকেলে আপনি যে কার্যকলাপটি করবেন তা গ্যাস নির্মূল করতে সাহায্য করবে – সেইসাথে প্রোবায়োটিক দিয়ে অন্ত্রের উদ্ভিদকে রক্ষা করে এমন ঔষধ সেবন করা।

পেটের গ্যাস বের করার ব্যায়াম

পেটের গ্যাস আপনাকে পেট ফোলা, খসখসে এবং একেবারে অস্বস্তিকর অবস্থায় ফেলতে পারে। আপনার যদি পেটে গ্যাস হয়, এবং আপনি এর থেকে মুক্তি পেতে চান, তবে আমাদের দেখানো ৭টি ব্যায়াম অনুশীলন করে দেখুন। এগুলো আপনার পেটের গ্যাস বের করতে সাহায্য করবে। চলুন, ব্যায়মা গুলো সম্পর্কে জেনে নিই।

১. বায়ু-মুক্ত ভঙ্গি (Wind-Relieving Pose)

Wind-Relieving Pose

এই ব্যায়ামটি নিম্নোক্ত ধাপ অনুসরণ করে করবেন-

মেঝের উপর মাদুর বিছিয়ে শুয়ে পড়ুন এবং একটি গভীর শ্বাস নিন।

আপনার বুকের কাছে হাঁটু বাঁকিয়ে আনুন এবং শ্বাস ছাড়ুন।

আপনার হাত বা বাহু দিয়ে আপনার শিন আলিঙ্গন করুন।

আপনি স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নেওয়ার সাথে সাথে আলতোভাবে পাশ দিয়ে রক করুন।

এভাবে ৮-১০ বার করুন। প্রয়োজনে আরও বাড়াতে পারেন।

২. স্পাইনাল টুইস্ট (Spinal Twist)

Spinal Twist

এই ব্যায়ামটি নিম্নোক্ত ধাপ অনুসরণ করে করবেন-

মাদুর বিছিয়ে শুয়ে পড়ুন। হাঁটু বাকিয়ে বুকের কাছে আনুন।

আপনার হাঁটু আটকে রাখুন, তবে “T” অক্ষর তৈরি করতে আপনার হাতগুলো দুই পাশে ছড়িয়ে দিন।

শ্বাস ছাড়ুন এবং আপনার হাঁটু ডান দিকে এবং আপনার মাথা বাম দিকে ছেড়ে দিন।

মাদুরের সংস্পর্শে আপনার কাঁধ রাখুন; আপনার হাঁটু একটি বালিশ বা ভাঁজ করা কম্বলের উপর রাখতে পারেন।

যদি এই অবস্থানটি আরামদায়ক লাগে তবে বেশ কিছুক্ষণ শ্বাস ধরে রাখুন, প্রায় ৩০-৬০ সেকেন্ড।

এরপর পাশ বদলান।

৩. সেতু ভঙ্গি (Bridge Pose)

এই ব্যায়ামটি নিম্নোক্ত ধাপ অনুসরণ করে করবেন-

আপনার পিঠের উপর শুয়ে পড়ুন এবং আপনার হাঁটু বাঁকুন যাতে আপনার হিল মাদুরের সংস্পর্শে থাকে।

শ্বাস নিন এবং আপনার নিতম্বগুলিকে সিলিংয়ের দিকে তুলুন।

আপনার নিতম্ব clenching এড়িয়ে চলুন.

বরং আপনার বুক সিলিংয়ের দিকে প্রসারিত করুন।

পাঁচ থেকে দশ সেকেন্ড শ্বাস ধরে রাখুন। 

শ্বাস ছেড়ে দিন এবং কয়েকবার পুনরাবৃত্তি করুন।

৪. শিশুর ভঙ্গি (Child’s Pose)

পেটের গ্যাস বের করার ব্যায়াম

Child’s Pose

এই ব্যায়ামটি নিম্নোক্ত ধাপ অনুসরণ করে করবেন-

একটি মাদুরের উপর হাটু গেড়ে বসুন।

আপনার হিলের উপর বসুন।

মাদুরের উপর সামনের দিকে আপনার বাহুগুলো প্রসারিত করুন।

আপনার কপাল মাদুরের সাথে লাগান, অথবা যদি মাদুরটি খুব দূরে থাকে, একটি বালিশ বা কম্বলের উপরে লাগান।

৩০-৬০ সেকেন্ড এভাবে থাকুন। এবং পুনরাবৃত্তি করুন।

৫. ক্যাট-কাউ বেন্ডস (Cat-Cow Bends)

Cat-Cow Bends

ব্যায়ামটি নিম্নোক্তভাবে করুন-

একটি মাদুরের উপর বিড়াল বা গরুর ভঙ্গিতে হাঁটু গেড়ে বসুন।

শ্বাস নিন এবং আপনার পেটকে মেঝের দিকে ঝুঁকতে দিন।

একই সাথে আপনার বুক এবং টেইলবোন তুলুন।

শ্বাস ছাড়ুন এবং আপনার পিঠকে টানটান করুন।

মনে হবে আপনি আইকনিক হ্যালোইন বিড়ালের অবস্থান অনুকরণ করছেন।

এভাবে ৮-১০ বার করুন।

আরও পড়ুন:

শরীর সুস্থ রাখার উপায় দোয়া রুটিন খাবার ব্যায়াম ও অন্যান্য

কোলেস্টেরল যুক্ত খাবার তালিকা ও কোলেস্টেরল কমানোর উপায়

 

৬. টুইস্টিং লাঞ্জ (Twisting Lunge)

মাদুরে আপনার ডান হাঁটু এবং আপনার বাম পা এগিয়ে নিয়ে একটি লাঞ্জ পজিশনে যান।

আপনার বাম নিতম্বের উপর আপনার বাম হাঁটু স্ট্যাক করুন।

আপনার ধড়কে মেঝেতে লম্ব করুন এবং আপনার হাতগুলিকে হৃদয়ের কেন্দ্রে আনুন।

শ্বাস ছাড়ুন এবং বাম দিকে ঘোরান, আপনার ডান হাত বা ডান ট্রাইসেপগুলি আপনার বাম উরুর বাইরে রাখুন।

১০ সেকেন্ড শ্বাস ধরে রাখুন।

পাশ পরিবর্তন করুন এবং আবার শ্বাস ধরে রেখে ডানদিকে মোচড় দিন।

৭. শ্বাস কাজ (Breath Work)

গ্যাস এবং ফোলাভাব উপশম করার জন্য ব্যায়াম ছাড়াও, আপনি আপনার গ্যাস দূর করতে পারেন। আপনি যখন কেবল শ্বাস নেওয়া এবং শ্বাস ছাড়ার দিকে মনোনিবেশ করেন, তখন আপনি আপনার কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রকে শান্ত করেন। কখনও কখনও, গ্যাস এবং ফুলে যাওয়া মানসিক চাপের একটি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে পারে। আপনি যখন শ্বাসের সাথে চাপ প্রশমিত করেন, তখন কেবল শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম গ্যাস প্রশমিত করতে সাহায্য করে। নিজেকে গভীরভাবে এবং সম্পূর্ণরূপে শ্বাস নেওয়ার প্রশিক্ষণ দেওয়া আপনাকে ভবিষ্যতের গ্যাস থেকে রক্ষা করতে পারে। খুব তাড়াতাড়ি খাওয়ার ফলে আপনি চিবানোর সময় বাতাস গিলে ফেলতে পারেন, ফলে পেটে গ্যাস সৃষ্টি হয়।

মাদুরে বা চেয়ারে আরামদায়ক অবস্থানে বসুন।

আপনার পেটে একটি হাত রাখুন।

আপনার চোখ বন্ধ করুন এবং আপনার নাক দিয়ে একটি গভীর শ্বাস নিন।

শ্বাসের সাথে আপনার পেটের প্রাচীরের উত্থান অনুভব করুন।

নাক দিয়ে শ্বাস ছাড়ুন এবং পেট ফাঁপা অনুভব করুন।

আপনার সিস্টেমকে প্রশমিত করতে এবং আপনার শ্বাস-প্রশ্বাসের ধরণ সম্পর্কে সচেতনতা আনতে এইভাবে শ্বাস নিতে এক থেকে দুই মিনিট বা তার বেশি সময় ব্যয় করুন।

এভাবে আপনি আপনার পেটের গ্যাস বের করার ব্যায়াম করতে পারেন। ব্যায়ামগুলো নিয়মিত করলে এবং কিছু খারাপ অভ্যাস পরিত্যাগ করলে আপনি এই গ্যাসের সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে পারবেন। পাশাপাশি এই ব্যায়ামগুলো আপনাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে।

You may also like

Leave a Comment